Home / Latest Tips / আসুন জেনে নেই এলাচ আমাদের কি কি উপকার করে

আসুন জেনে নেই এলাচ আমাদের কি কি উপকার করে

প্রতিদিন মাত্র ১ টি এলাচ খাওয়ার উপকারিতা – খাবার খেতে বসলে মুখে এলাচ চলে গেলে মুখের স্বাদটাই মাটি হয়ে যায় অনেকের। মনে মনে ভাবতে থাকেন এলাচ খাবারে না দিলেই কি নয়? কিন্তু সত্যিই এই এলাচ রান্নাতে না ব্যবহার করলেই নয়। কারণ রান্নার স্বাদ ও গন্ধ বাড়ানো এলাচের অন্যতম কাজ। কিন্তু আপনি জানেন কি রান্না ছাড়াও আপনি এলাচ খেলে তা আপনার ১০ টি শারীরিক সমস্যা দূরে রাখবে? অনেকেই হয়তো বিষয়টি জানেন না। কিন্তু প্রতিদিন মাত্র ১ টি এলাচ খাওয়ার ফলে নানা রকম সমস্যার সমাধান পাবেন। আসুন জেনে নেওয়া যাক এলাচের উপকারী গুণ সম্পর্কে

এলাচ এবং আদা সমগোত্রীয়। আদার মতোই পেটের নানা সমস্যা এবং হজমের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এলাচ অনেক কার্যকরী। বুক জ্বালাপোড়া, বমি ভাব, পেট ফাঁপা, অ্যাসিডিটির হাত থেকে মুক্তি পেতে এলাচ মুখে দিন।দেহের ক্ষতিকর টক্সিন দূর করে দিতে এলাচের জুড়ি নেই। এলাচের ডিউরেটিক উপাদান দেহের ক্ষতিকর টক্সিন পরিষ্কারে সহায়তা করে।

রক্তনালীতে রক্ত জমে যাওয়ার সমস্যায় ভুগে থাকেন অনেকেই। এলাচের রক্ত পাতলা করার দারুণ গুনটি এই সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে। প্রতিদিন এলাচ খেলে রক্তের ঘনত্ব সঠিক থাকে।এলাচের ডিউরেটিক উপাদান উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা কমিয়ে আনতে সক্ষম। দেহের বাড়তি ফ্লুইড দূর করে এলাচ উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনতে সহায়তা করে।

মুখে খুব বেশি দুর্গন্ধ হয়? একটি এলাচ নিয়ে চুষতে থাকুন। এলাচ মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে মুখের দুর্গন্ধ দূর করে।নিয়মিত এলাচ খাওয়ার অভ্যাস মুখের দুর্গন্ধের পাশাপাশি মাড়ির ইনফেকশন, মুখের ফোঁড়া সহ দাঁত ও মাড়ির নানা সমস্যা থেকে রক্ষা করে।

গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত এলাচ খাওয়ার অভ্যাস ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। এলাচ দেহে ক্যান্সারের কোষ গঠনে বাঁধা প্রদান করে থাকে।এলাচের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান ত্বকে বয়সের ছাপ, রিংকেল, ফ্রি র্যাহডিকেল ইত্যাদি পড়তে বাঁধা প্রদান করে। এলাচ ত্বকের ক্ষতি পূরণেও বেশ সহায়ক।

ঠাণ্ডা ও কফের ঘরোয়া চিকিৎসাঃ এক কাপ পানি ফুটিয়ে তাতে এলাচ ও মধু মিশিয়ে পান করুন। শুষ্ক কফ, ঠাণ্ডা ও গলাব্যথা দূর হবে। তাছাড়া, যাদের শুষ্ক কফের কারণে অ্যাসিডের সমস্যা দেখা দিচ্ছে তারা এলাচ চিবিয়ে খেতে পারেন। এটা লালাগ্রন্থিকে উদ্দীপিত করতে সাহায্য করে। পাকস্থলীর কার্যকারিতা বাড়ায়। ফলে হজমক্রিয়া বাড়ে এবং হৃদরোগের ঝুঁকি কমে। প্রদাহরোধী উপাদানের জন্য এটা অ্যাজমা ও গুরুতর ঠাণ্ডার সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে সাহায্য করে। প্রতিদিন আধ ঘণ্টা এলাচ চিবালে বিনা খরচেই ঠাণ্ডার সমস্যা থেকে রক্ষা পেতে পারেন।

১. সর্দি-কাশি থেকে মুক্তি দেয়। চায়ের সঙ্গে মধু মেশানো এলাচ খেলে কমতে পারে সর্দি-কাশির উপদ্রব। ২. নিয়মিত এলাচ খেলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক থাকে। ৩. এলাচ ওজন কমাতে সাহায্য করে। ৪. এলাচের মধ্যে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। যা ত্বকে ছাপ, বলিরেখা পড়তে বাধা দেয়। ৫. মুখের দুর্গন্ধ হতে বাঁচতে মুখে রাখুন দুই-তিনটি এলাচ। ৬. নিয়মিত এলাচ খেলে কমতে পারে ক্যানসারের সম্ভবনা। ৭. মুখের ঘা, মাড়ির ক্ষত ইত্যাদিতে এলাচ অব্যর্থ ওষুধের কাজ করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *