Home / ত্বকের যত্ন / শীতকালে সুন্দর ত্বক পেতে চান? শোবার আগে মাত্র দশ মিনিট ব্যয় করুন!

শীতকালে সুন্দর ত্বক পেতে চান? শোবার আগে মাত্র দশ মিনিট ব্যয় করুন!

সম্প্রতি সারা বিশ্বে একটি সমীক্ষা চালানো হয়েছিল। সমীক্ষার প্রশ্ন ছিল, “ফর্সা ত্বক পেতে কে কী করেন?” ১৮-৩০ বছর বয়সি মহিলাদের করা এই প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে ৮০ শতাংশই বলেছেন তারা বাজার চলিত নামি-দামি ব্যান্ডের ফেয়ারনেস ক্রিম মেখে থাকেন। কিন্তু সেই সব ক্রিম মেখে যে খুব একটা ফলও পাওয়া যায় না, সে বিষয়েও আলোকপাত করেছেন তারা। একথার মধ্যে কোনও ভুল নেই যে বেশিরভাগ বাজার চলতি ফেয়ারনেস ক্রিমই ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বাড়ানোর পরিবর্তে ক্ষতি করে বেশি।

কারণ এই সব ক্রিমে এমন কিছু কেমিক্যাল থাকে, যা ত্বকের অন্দরে প্রবেশ করা মাত্র নানা খারাপ করতে শুরু করে। তাই তো এই সব ক্রিম ব্যবহার না করে প্রাকৃতিক পদ্ধতির উপর বেশি ভরসা রাখার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। কিন্তু প্রশ্ন হল কীভাবে কাজে লাগাতে হবে নানাবিধ প্রাকৃতিক উপাদানকে? এক্ষেত্রে এই প্রবন্ধটি আপনাকে সাহায্য করতে পারে।

কারণ এই লেখায় প্রকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি এমন একটি ফেস মাস্কের প্রসঙ্গে আলোচনা করা হল, যা অল্প দিনের ত্বকের সৌন্দর্য ফেরানোর পাশাপাশি একাধিক স্কিন ডিজিজের উপশমেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। মধু এবং দইয়ের সহযোগে বানাতে হবে এই ফেস মাস্কটি। এক্ষেত্রে যে যে উপকরণগুলির প্রয়োজন পরবে, সেগুলি হল- ৭ টা গোলাপের পাপড়ি, ২ চামচ বিশুদ্ধ গোলাপ জল, ২ চামচ দই এবং ১ চামচ মধু।

ফেস মাস্কটি বানানোর পদ্ধতি: পরিমাণ মতো গোলাপ জলে গোলাপ পাপড়িগুলো কম করে ৫ মিনিট চুবিয়ে রাখুন। সময় হয়ে গেলে গোলাপ পাপড়িগুলিকে হাত দিয়ে পিষে নিন। তারপর তাতে মধু এবং দই মিশিয়ে ভাল করে নারান। যাতে সব কটি উপকরণ ঠিক মতো মিশে যেতে পারে। যখন দেখবেন উপকরণগুলি ভাল রকম মিশে গেছে, তখন অল্প করে পেস্টটা নিয়ে সারা মুখে লাগিয়ে মাসাজ করুন। এমনটা করলে পেস্টটা ত্বকের একেবারে ভিতর পর্যন্ত চলে যাবে। এরপর ১৫ মিনিট পেস্টটা মুখে লাগিয়ে রেখে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ধীরে ধীরে ত্বক ফর্সা হয়ে উঠবে: মধু এবং দই, ত্বকের অন্দরে প্রবেশ করে স্কিন টোনের উন্নতি ঘটাতে শুরু করে। দই এখানে ব্লিচিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে। তাই তো এই ফেস মাস্কটি টানা ১০-১২ দিন মুখে মাখলে ত্বক ধীরে ধীরে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে।

শীতের রুক্ষতা যেন কোনোভাবেই কেড়ে নিতে না পারে আপনার ত্বকের সৌন্দর্য, সে কারণেই শীতকালে চাই ত্বকের বিশেষ পরিচর্যা। খুব বেশি নয়, মাত্র মিনিটের যত্নেই আপনি আপনার ত্বক রাখতে পারবেন কোমল, মসৃণ ও উজ্জ্বল। আর তাতে ঝামেলাও নেই মোটেও। ঘুমুতে যাবার আগে নিজের জন্য ব্যয় করা এই দশ মিনিটে আপনার ত্বক থাকবে প্রাণবন্ত। জেনে নিন ত্বকের ধরন অনুযায়ী উপাদানের ব্যবহার।

তৈলাক্ত ত্বক –
এক চা চামচ ময়দা, এক চা চামচ মধু, আধা চা চামচ লেবুর ও পরিমাণমতো গোলাপজল মিশিয়ে পাতলা মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণ পুরো মুখে লাগিয়ে দশ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। মুখ মুছে আপনার রেগুলার ময়েশ্চারাইজার লাগান।

শুষ্ক ত্বক –
শুষ্ক ত্বক শীতকালে আরো বেশি শুষ্ক হয়ে যায়। তাই শুষ্ক ত্বকের পরিচর্যা বিশেষভাবে প্রয়োজন। এক চা চামচ মসুর ডালের গুঁড়া, এক চা চামচ দুধের সর বাটা ও পরিমাণমতো গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এটি পুরো মুখে লাগিয়ে দশ মিনিট পর ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন। মুখ মুছে আপনার রেগুলার ময়েশ্চারাইজার লাগান।

মিশ্র ত্বক –
সবচেয়ে গোলমেলে ত্বক হলো মিশ্র ত্বক। সবকিছু এই ত্বকে খাপ খায় না। এক চা চামচ শ্বেত চন্দনের গুঁড়া, আধা চা চামচ ময়দা ও পরিমাণ মতো গোলাপজল মিশিয়ে পাতলা মিশ্রণ তৈরি করুন। মিশ্রণটি পুরো মুখে লাগিয়ে রাখুন দশ মিনিট। এর পর কুসুম গরম পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন। মুখ মুছে আপনার রেগুলার ময়েশ্চারাইজার লাগান।

স্পর্শকাতর ত্বক –
স্পর্শকাতর ত্বকে ব্রণের সমস্যা থাকে বারো মাস। তাই এ ধরনের ত্বকের যত্ন নিতে হয় নিয়মিত। এক চা চামচ ময়দা, আধা চা চামচ লেবুর রস ও পরিমাণমতো তরল দুধ মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করুন। মিশ্রণটি পুরো মুখে লাগিয়ে দশ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। মুখ মুছে আপনার রেগুলার ময়েশ্চারাইজার লাগান।

পরামর্শ দিয়েছেন-
কাজী যুথী
রূপ বিশেষজ্ঞ, যুথীস বিউটি কেয়ার স্টুডিও
এন/১০ নূরজাহান রোড,
মোহাম্মদপুর, ঢাকা

তথ্যসুত্রঃ প্রিয় লাইফ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *