Home / ত্বকের যত্ন / অল্প দিনে সহজেই স্থায়ীভাবে ফর্সা হতে কাজে লাগান গ্রিন টির ফেসপ্যাক

অল্প দিনে সহজেই স্থায়ীভাবে ফর্সা হতে কাজে লাগান গ্রিন টির ফেসপ্যাক

ত্বকের ভিতরে লুকিয়ে থাকা নানা ক্ষতিকর উপাদানকে বের করে এনে স্কিনকে সুন্দর এবং উজ্জ্বল করে তুলতে গ্রিন টির কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। আসলে এতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং প্রোটিন, যা ত্বকের বয়স কমানোর পাশপাশি স্কিনের ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। শুধু তাই নয়, ত্বককে ফর্সা করে তুলতেও ব্যাপকভাবে সাহায্য করে।

গ্রিন-টি দিয়ে বানানো এমন কিছু ফেস মাস্কের সম্পর্কে আলোচনা করা হল, যা নিয়মিত ব্যবহার করলে সৌন্দর্যের দিকে থেকে আপনি আপনার প্রিয় হিরোইনকেও টেক্কা দিতে পারবেন। বিশ্বাস হচ্ছে না তো আমার কথা? করতেও হবে না। একবার শুধু এই প্রবন্ধে আলোচিত গ্রিন টি ফেস মাস্কগুলিকে কাজে লাগিয়ে দেখুন। তাহলেই আপনি আপনার উত্তর পেয়ে যাবেন।

১। গ্রিন টি এবং চালের আটা :
হাফ কাপ গ্রিন টি বানান। তারপর তাতে ২ চামচ চালের আটা মিশিয়ে ভাল করে গুলে ফেলুন। যখন দেখবেন দুটি উপকরণ ভাল করে মিশে গিয়ে একটা পেস্টের মতো তৈরি হয়ে গেছে, তখন সেই মিশ্রনটি ভাল করে মুখে লাগিয়ে নিন।

কিছু সময় অপেক্ষা করার পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখটা ধুয়ে ফেলুন। প্রসঙ্গত, চালের ময়দা মুখের কালো ছোপ ছোপ দাগ কমিয়ে ফেলতে সাহায্য করে। আর গ্রিন টি মূলত ত্বকের অতিরক্ত তেলা ভাব তমিয়ে ফলতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রালন করে থাকে।

২.। গ্রিন টি এবং ক্রিম :
হফ কাপ ক্রিমে পরিমাণ মতো গ্রিন টি মিশিয়ে নিন। তারপর তাতে একে একে চিনি এবং ব্রাউন সুগার মেশান। সবকটি উপকরণ মেশানোর পর ভাল করে মিশ্রনটি নারাতে থাকুন, যাতে একটা পেস্ট তৈরি হয়ে যায়। যখন দেখবেন মিশ্রনে দু ধরনের চিনিই ভাল করে মিশে গেছে, তখন পেস্টটা নিয়ে ভাল করে মুখে লাগিয়ে ২০ মিনিট মাসাজ করুন। সময় হয়ে গেলে জল দিয়ে মুখটা ধুয়ে নিন।

৩। গ্রিন টি এবং লেবু :
অল্প করে গ্রিন টি বানিয়ে তাতে পরিমাণ মতো লেবুর রস, ১ চামচ অলিভ অয়েল এবং ১ চামচ রেড়ীর তেল মিশিয়ে নিন। সবকটি উপকরণ ভাল করে মেশানোর পর মিশ্রনটি মুখে লাগিয়ে শুকনোর সময় দিন। যখন দেখবেন মিশ্রনটি একেবারে শুকিয়ে গেছে, তখন ঠান্ডা জল দিয়ে মুখটা ধুয়ে ফেলুন। প্রসঙ্গত, লেবুতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ভিটামিন-সি, যা ত্বকের দাগ কমানোর পাশপাশি কালো ছোপ কমিয়ে ফেলতেও দারুন কাজে আসে। আর গ্রিন টি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ার করাণে ত্বকের বয়স কমাতে বিশেষ ভূমিকা নেয়।

৪। গ্রিন টি এবং মধু :
অল্প করে গ্রিন টি বানিয়ে নিন। তারপর তাতে পরিমাণ মতো মধু এবং ১ চামচ অলিভ অয়েল মেশান। ভাল করে সবকটি উপাদান মিশিয়ে নিয়ে মুখে লাগান। ২০ মিনিট পর মুখটা ধুয়ে নিন। প্রসঙ্গত, যাদের ত্বক খুব শুষ্ক, তাদের ক্ষেত্রে এই ফেস মাস্কটি দারুন কাজে লাগে। কারণ এটি ত্বকের হারিয়ে যাওয়া আদ্রতা ফিরিয়ে দিতে দারুন কাজে আসে।

৫। গ্রিন টি এবং অ্যালো ভেরা :
অল্প করে গ্রিন টি-এর পাতা নিয়ে তাতে এক স্কুপ অ্যালো ভেরা জেল মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রনে ১ চামচ লেবুর রসও মেশাতে পারেন। সবকটি উপাদান ভাল করে মিশে যাওয়ার পর সেটি ১০ মিনিট ধরে মুখে মাসাজ করুন। সময় হয়ে গেলেই কিন্তু মুখ ধুয়ে নেবেন না। মাসাজ করার পর মাস্কটি ১০ মিনিট রেখে দেবেন। তারপর মুখ ধোবেন। প্রসঙ্গত, প্রতিদিন এই ফেস মাস্কটি মুখে লাগালে চুলকানি, জ্বালাভাব এবং লাল-লাল ছোপ সব কোমে যাবে। সেই সঙ্গে ত্বক ফর্সা হতেও শুরু করবে।

৬। গ্রিন টি এবং ওটস :
হাফ কাপ ওটসের সঙ্গে পরিমাণ মতো গ্রিন টি, ১ চামচ লেবু এবং ১ চামচ জোজোবা তেল মিশিয়ে নিন। সবকটি উপকরণ ভাল করে মিশে যাওয়ার পর মিশ্রনটি মুখে লাগান। কিছু সময় অপেক্ষা করার পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখটা ধুয়ে ফেলুন। এই ফেস মাস্কটা ব্যবহার করলে ত্বকের উপরিঅংশে জমে থাকা ময়লা এবং মৃত কোষের আবরণ সরে যায়। ফলে ত্বক উজ্জ্বল এবং সুন্দর হয়ে ওঠে।

৭। গ্রিন টি এবং ডিমের সাদা অংশ :
ব্রণ এবং বলিরেখার সমস্যায় যদি জীবন দুর্বিসহ হয়ে ওঠে, তাহলে এই ফেস মাস্কটি আপনারই জন্য। এটি প্রতিদিন মুখে লাগালে ত্বকের বয়স কমে। সেই সঙ্গে স্কিন উজ্জ্বল এবং প্রাণবন্ত হয়ে ওঠে। পরিমাণ মতো গ্রিন টি নিয়ে তাতে ১ টা ডিমের সাদা অংশ মেশান। সেই সঙ্গে মেশান পরিমাণ মতো লেবুর রস এবং ময়দা। সবকটি উপকরণ মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে ফেলুন। তারপর সেটি ২০ মিনিট ধরে মুখে মাসাজ করুন। সময় হয়ে গেলে মুখটা ধুয়ে নিন।

৮। গ্রিন টি এবং চিনি :
এক কাপ গ্রিন টি-এর সঙ্গে ১ চামচ ব্রাইন সুগার, ২ চামচ সামদ্রিক লবন এবং ১ চামচ মধু মিশিয়ে বানাতে হবে এই ফেস মাস্কটি। মিশ্রনটি তৈরি হয়ে যাওয়ার পর গোলাকার ছন্দে সেটি সারা মুখে লাগিয়ে কিছুক্ষণ মাসাজ করুন। মাসাজ করার ১০ মিনিট পর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখটা ধুয়ে নিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *