Home / অন্যান্য / ৩০-এর পরও অবিবাহিত থাকলে মারাত্মক বিপদ অপেক্ষা করছে আপনার জন্য!

৩০-এর পরও অবিবাহিত থাকলে মারাত্মক বিপদ অপেক্ষা করছে আপনার জন্য!

এখনও কি সিঙ্গেলই আছেন? তাহলে মারাত্মক বিপদ অপেক্ষা করছে আপনার জন্য! কারণ সম্প্রতি একদল বিজ্ঞানী বলছে, বেশি দিন সিঙ্গেল থাকলে নাকি স্মৃতিলোপ পাওয়ার আশঙ্কা থাকে। শুধু তাই নয়, ডিমেনশিয়ার মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও নাকি কয়েক গুণ বেড়ে যায়।

কিন্তু সিঙ্গেল থাকার সঙ্গে স্মৃতি লোপের যোগাযোগটা কোথায়? একদল গবেষক সারা বিশ্বের প্রায় ৮ লাখ মানুষের উপর দীর্ঘদিন ধরে পরীক্ষা চালিয়েছেন। এক্ষেত্রে তারা দেখেছেন যে ভালবাসার মানুষটির সঙ্গে থাকলে শরীর এবং মন ভালো থাকে। কোনও রোগই তখন কাছে ঘেঁষতে পারে না।

কিন্তু সমস্যা শুরু হয় যখন কেউ দীর্ঘদিন একা থাকে। এমনটা হলে ডিমেনশিয়ার মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা প্রায় ২০ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। কারণ একাকিত্ব এক ধরনের বিষ, যা ধীরে ধীরে শরীর এবং মস্তিষ্ককে ভেঙেচুরে দেয়। ফলে নানা মরণ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা বাড়ে। তাই স্মৃতির ভান্ডারকে সুরক্ষিত রাখতে চটজলদি বিয়ে করে নিতে ভুলবেন না কিন্তু! মূলত যে যে খাবারগুলি নিয়মিত খেলে স্মৃতিশক্তি মারাত্মক বৃদ্ধি পায়, সেগুলি হল…

অ্যাভোকাডো:
এই ফলটিতে উপস্থিত ভিটামিন কে এবং ফলেট মস্তিষ্কের অন্দরে ব্লাড ক্লট হওয়ার আশঙ্কা কমায়। সেই সঙ্গে কগনিটিভ ফাংশানেরও উন্নতি ঘটায়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়ার আশঙ্কা কমে। বরং নিয়মিত অ্যাভোকাডো খেলে মেমরি বাড়তে শুরু করে। প্রসঙ্গত, অ্যাভোকাডোর অন্দরে সি এবং বি ভিটামিনেরও সন্ধান পাওয়া যায়। এই দুটি ভিটামিনও ব্রেন পাওয়ার বাড়াতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

বিট:
বয়স যদি ৩০ পেরিয়ে গিয়ে থাকে এবং এখনও যদি বিয়ের সানাই না বেজে থাকে, তাহলে রক্তিম এই সবজিটি খাওয়া শুরু করতেই হবে। কারণ একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে বিটের অন্দের থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরে প্রবেশ করার পর দেহের অন্দরে থাকা টক্সিক উপাদানদের বের করে দেয়। ফলে একদিকে যেমন ক্যান্সার রোগ ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না, তেমনি মস্তিষ্কে রক্তের সরবরাহ বেড়ে যাওয়ার কারণে ব্রেন পাওয়ার বাড়তে শুরু করে। সেই সঙ্গে বাড়ে স্মৃতিশক্তিও।

জাম:
স্মৃতিশক্তি কমে যাক, এমনটা যদি না চান, তাহলে নিয়মিত এক মুঠো করে জাম খাওয়া শুরু করুন। দেখবেন উপকার পাবেন। কারণ এই ফলটির অন্দের থাকা ভিটামিন সি, ভিটামিন কে এবং ফাইবার এক্ষেত্রে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রসঙ্গত, জামে থাকা গ্যালিক অ্যাসিড, ব্রেনকে স্ট্রেস এবং ডিজেনারেশনের হাত থেকে বাঁচায়। ফলে সিঙ্গেল থাকলেও ডিমেনশিয়ার মতো রোগ ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না।

অতএব, স্মৃতির ভান্ডারকে সুরক্ষিত রাখতে দ্রুত বিয়ে করাটাই জরুরী বলে মনে করেন গবেষকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *